মেনু নির্বাচন করুন

কৃষি ও প্রাণিসম্পদ

কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন একটি স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠান। ১৯৬১ সনে কৃষি তথ্য সংস্থা হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর ১৯৮০ সনে কৃষি তথ্য সংস্থাকে কৃষি তথ্য সার্ভিস নামকরণ করা হয়। সংস্থাটি জন্মলগ্ন থেকে নিরলসভাবে গণমাধ্যমের সাহায্যে কৃষি তথ্য ও প্রযুক্তি তৃণমূল পর্যন্ত দ্রুত বিস্তার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। কৃষি তথ্য সার্ভিসের সদর দপ্তর খামারবাড়ি, ফার্মগেট, ঢাকায় অবস্থিত। মাঠ পর্যায়ে ঢাকা, ময়মনসিংহ,  কৃমিল্লা, সিলেট, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, পাবনা ও বরিশালসহ মোট এগারোটি আঞ্চলিক কার্যালয় এবং ঠাকুরগাঁও ও কক্সবাজারে দুটি লিয়াজোঁ অফিস রয়েছে।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য:
বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত আধুনিক লাগসই কৃষি তথ্য ও প্রযুক্তি সহজ সরল ও সাবলীলভাবে অভীষ্ট দলের কাছে বোধগম্য আকারে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা কৃষি তথ্য সার্ভিসের প্রধান লক্ষ্য। প্রিন্টিং মিডিয়া, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ও আইসিটি’র সাহায্যে এসব তথ্য প্রযুক্তি বিভিন্ন আঙ্গিক ও কৌশলে উপস্থাপন করে সংশ্লিষ্ট সবাইকে উদ্বুদ্ধ করা এবং কৃষি উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা।

 

মানব সম্পদ উন্নয়ন:
জ্ঞান দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। এ মর্মবাণী ধারণ করে কৃষি তথ্য সার্ভিস মিডিয়াভিত্তিক বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বাস্তবায়িত করে থাকে। এ প্রশিক্ষণের মূল উদ্দেশ্য হলো দেশব্যাপী মিডিয়া পার্সোনাল তথা কমিউনিকেটর তৈরি করা। এতে কৃষি তথ্য প্রযুক্তি আরো দ্রুত এবং কার্যকর পদ্ধতিতে কৃষকের দ্বারে পৌঁছে যাবে। কৃষিতে উন্নয়ন যোগাযোগ, প্রযুক্তি হস্তান্তর কৌশল, ফটোগ্রাফি, ভিডিওগ্রাফি, ই-গভর্নেন্স, ই-কৃষি, কম্পিউটার এপ্লিকেশনসহ অন্যান্য আবশ্যকীয় শিরোনামে ৩ থেকে ৫ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ বাস্তবায়ন করছে। এতে সরকারি, বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা/কর্মচারী অংশগ্রহণ করে থাকেন। কৃষি তথ্য সার্ভিস এর সদর দপ্তরের যাবতীয় প্রশিক্ষণ আধুনিক সুযোগসুবিধা সম্পন্ন আইসিটি কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। আঞ্চলিক পর্যায়ে উপযুক্ত ভেন্যুতে এ কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়। এসবের পাশাপাশি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সেমিনার, ওয়াকর্শপ ইত্যাদি আয়োজনের মাধ্যমে নীতিনির্ধারকমহলে প্রয়োজনীয় পরামর্শ/মতামত তুলে ধরা হয়।

শেষ কথা:
সীমিত জনবল ও সম্পদকে কাজে লাগিয়ে কৃষি তথ্য সার্ভিস তৃণমুল পর্যায়ে তথ্য বিস্তারের কাজটি নিরলসভাবে করে চলেছে। কৃষি তথ্য সার্ভিসের অনন্য ভূমিকার কারণে সংস্থাটি ‘বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক-১৪১৭’ পদকে ভূষিত হয়। এছাড়াও ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা-২০১০, জাতীয় ডিজিটাল পদক-২০১১ সনে একাধিক শ্রেণীতে প্রথম পুরষ্কার পাওয়ার গৌরব অর্জন করে।  কৃষি আমাদের জীবন ও জীবিকার প্রধান উপকরণ। কৃষিভিত্তিক আমাদের এই বাংলাদেশকে কৃষিতে সমৃদ্ধ করতে সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতার মাধ্যমে কৃষি তথ্য সার্ভিস আরো কার্যকর ভূমিকা রাখতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।